সেলফি তুলতে নিষেধ করলে তারা রাগ করেন

0
49 views
সাবিলা নূর। ফাইল ছবি

হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। সময় কাটছে কী করে?

অনলাইনে ক্লাস করছি। পাশাপাশি মায়ের কাজে সাহায্য, বই পড়া, সিনেমা দেখা, ফেসবুকে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডাবাজি। এভাবেই…

করোনা সচেতনতায় ভক্তদের জন্য কিছু বলবেন?

সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে সতর্ক ও সচেতন হতে হবে। কারণ একটু সচেতনতাই পারে সবাইকে ঝুঁকিমুক্ত রাখতে। সবাই নিজেদের মতো করে বাসায় থাকা প্রয়োজন। অত্যন্ত জরুরি কোনো কারণে বাইরে যেতে হলে নিয়ম করে হাত ধোয়ার পাশাপাশি মাস্ক ব্যবহার করা প্রয়োজন।

এবার অন্য প্রসঙ্গ। আপনার অভিনীত ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট সিজন টু’ এ সময়ের নাটকের চেয়ে কতটা আলাদা?

এটি অন্য নাটকের চেয়ে অনেকটাই আলাদা। আমার মনে হয়, পুরোপুরি কমেডিনির্ভর এই নাটকটির সঙ্গে দর্শকরা নিজেকে চিন্তা করতে পারেন। দেখুন, আমরা কিন্তু সবসময় আনন্দ খুঁজি। আর যেহেতু আনন্দের প্রায় প্রত্যেকটি উপকরণ এই নাটকের গল্পে রয়েছে, তাই নাটকটি এত জনপ্রিয়তা পেয়েছে। নির্মাতা কাজল আরেফিন অমিও বেশ যত্ন নিয়ে কাজটি করছেন। পাঁচ-ছয়জন ব্যাচেলরের গল্প নিয়ে নির্মিত এই নাটকে আমি ব্যাচেলরদের সঙ্গে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি। তারা আমার ভালো বন্ধু।

‘নাবিলা’ চরিত্রটি নিয়ে দর্শক কী বলছেন?

দর্শকের প্রতিক্রিয়া বেশ ভালো। মাঝে অনেক দিন কাজ করিনি। ভক্তরা জিজ্ঞেস করেছিলেন, কেন অভিনয় করছি না এই নাটকে? এতে বোঝা যায় আমার অভিনীত চরিত্রটি নিয়ে দর্শকের আগ্রহ রয়েছে।

ক্যারিয়ারের ৬ বছর পার করেছেন। অভিনয় নিয়ে এখন আপনার উপলব্ধি কী?

যত সময় যাচ্ছে ততই বুঝতে শিখেছি অভিনয়কে কতটা ভালোবাসি। প্রতিনিয়ত শিখছি। সামনে আরও ভালো ভালো নাটক-টেলিছবিতে অভিনয় করতে চাই।

শুনলাম, কিছুদিন আগে ভক্তের বিড়ম্বনায় পড়েছিলেন…

এটাকে ঠিক বিড়ম্বনা বলা যায় না। ভক্তরা আমাদের সঙ্গে কথা বলেন কিংবা ছবি তুলতে চান তা উপভোগ করি। কিন্তু দেশে যখন করোনাভাইরাস ঘুরছে, তখন সতর্ক থাকার চেষ্টা করি। জরুরি কাজে মাঝে একটি শপিং মলে গিয়েছিলাম। সবাই এগিয়ে আসেন সেলফি তুলতে। নিষেধ করলে তারা আমার ওপর রাগ করলেন।

Facebook Comments