Breaking News
Home / পাঠক কলাম / চলমান কটুক্তি ধর্ষণ কুপিয়ে হত্যা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উসকানিমূলক গুজব দেশের মহামারী পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

চলমান কটুক্তি ধর্ষণ কুপিয়ে হত্যা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উসকানিমূলক গুজব দেশের মহামারী পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

সত্যিকার অর্থে এগিয়ে যাওয়ার বাংলাদেশকে পিছিয়ে রাখতে নানা পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। যার ব্যাখা আমি এভাবে দিতে চায় যে, দেশে প্রতিনিয়ত অমানবিক কায়দায় ধর্ষন ও কুপিয়ে হত্যা হচ্ছে, তা স্বাধীন দেশের চিত্র নয়।

ধর্ম নিয়ে কটুক্তি কম-বেশি চোখে পড়ে। আর কটুক্তিকারীদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, এক ধর্মের লোক হয়ে অন্য ধর্ম নিয়ে অহেতুক কটুবাক্য বললে বা লিখলে বেহেশতে বা স্বর্গে যাওয়া যায় এমন কোন দৃশ্য বাস্তবে তো দূরের কথা, কখনো স্বপ্নে দেখেছেন!

আরো বলতে চায়, স্ব স্ব অবস্থান থেকে নিজের ধর্মকে অধিক প্রাধান্য ও অন্য ধর্মের প্রতি যথাযথ মর্যাদা রেখে বাকি জীবনটা অতিবাহিত করাটা অনেক শ্রেয়। প্রতিটি ধর্ম নৈতিক শিক্ষা বাবদ সৎ পথে চলা, সত্য কথা বলা, সৎ উপার্জন করার কথা তুলে ধরে।

তবে যারা চলমান বিভিন্ন অপরাধে জড়িত হচ্ছে, তাদের সর্বনিম্ন শাস্তি না হয়ে দ্রুত সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করলে অপরাধীদের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে মন্থর গতিতে রূপ নিবে।

আমাদের সমাজে বেশ প্রচলন আছে কেউ অন্যায় করলে তার বেশির ভাগ খেসারত দিতে হয় পুরো পরিবার তথা গোষ্ঠীকে। যা এক সময়ের বাংলা সিনেমার মতো। একজন হিন্দু বা মুসলিম কোন প্রকারের অপরাধ করলে তার দায়ভার কেন পুরো গোষ্ঠী নিবে।

ছোটবেলায় ধর্মীয় নৈতিক শিক্ষায় পড়েছি, এক দুর্ধর্ষ ডাকাত প্রতিদিন ডাকাতি করে পরিবার চালাতো। হঠাৎ একদিন তাকে এক মুনি ঋষি বলেন, তুমি যে পরিবার চালানোর জন্য প্রতিনিয়ত মানুষ খুন করে পাপের ভাগিদার হচ্ছো, তার দায়ভার কী পরিবার নিবে। উত্তরে ডাকাত বলে অবশ্যই নিবে। কেননা পরিবারের দৈনন্দিন খরচ চালাতে আমি এসব কাজ করি। তৎক্ষণাৎ মৃদুস্বরে হেসে মুনি ঋষি বলে, তোমার পাপের ভার কেউ নিবে না। তুমি বিশ্বাস না করলে বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সকল সদস্যকে জিজ্ঞেস কর। তখনিই ডাকাত বলে ঠিক আছে আমি প্রমাণ দেখাচ্ছি। সাথে সাথেই বাড়িতে গিয়ে প্রথমে মাকে জিজ্ঞেস করে আমি তোমাদের ভরণপোষণ করতে গিয়ে যদি কোন পাপ কাজ করে থাকি, তাহলে তার ভাগিদার তুমি হবে না। উত্তরে মা বলে, তোরে দশ মাস দশ দিন পেটে রেখে আমার বুকের দুধ খাওয়ায়ে বড় করেছি তার প্রতিদান কোন কিছুর বিনিময়ে দিতে পারবি না।তাহলে আমি কেন তোর পাপের ভাগিদার হবো। মায়ের উত্তর শুনে কিছুটা বিস্মিত হয়ে বাবার কাছে গিয়ে একই প্রশ্ন জিজ্ঞেস করলে উত্তর পায় তুই যখন ছোট ছিলি,তখন তোর সমস্ত ভরণপোষণ আমার ছিলো। আর এখন আমি বৃদ্ধ হয়েছি তুই খরচ চালাবি তাতো সাংসারিক নিয়মের মধ্যে। এক্ষেত্রে পাপের ভার আমি কেন নিবো।

শেষমেষ ডাকাত তার বউকেও গিয়ে একই প্রশ্ন করলে উত্তরে বউ বলেন, বিয়ে করার দিন বলেছিলে আজ থেকে তোমার সমস্ত ভরণপোষণের দায়িত্ব আমি নিয়েছি। আমাকে চালাতে গিয়ে তুমি পাপ করলে তার ভার আমি তো নিবোই না। বরং তুমি কোন পুণ্যের কাজ করলে তার অর্ধেকের ভাগিদার আমি হবো। পরিবারের সবার কাজ থেকে এমন অপ্রত্যাশিত কথা শুনে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়লো।

পরিশেষে বলবো বোরহান উদ্দিনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশে কোন ধরনের নাশকতা বা ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটতে না পারে,তার জন্য যথাযথ প্রশাসন ও গোয়েন্দা সংস্থা নজরদারী করছে। একই সাথে নবীজী কটুক্তিকারী যেই হোক না কেন আইনের আওতায় আনার জন্য সদয় দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

লেখক : আশীষ মল্লিক

প্রকাশক ও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক,আলোড়ন নিউজ

লিংক কম্পিউটার যশোর এর বিজ্ঞাপন

About বাংলা ভোর

সবার আগে আমরা

Check Also

যে গাছগুলো ঘরে রাখলে এসির দরকার হবে না!

শামীম খাঁন, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ গরমের তীব্রতা থেকে বাঁচতে এসি (এয়ারকন্ডিশনার) কেনেন অনেকেই। দিনশেষে প্রিয় ঘরটিতে …